সর্বভারতীয় সমবায় সংগঠন সহকার ভারতীর পশ্চিমবঙ্গ শাখার প্রথম রাজ্য অধিবেশন আদ্যাপীঠে ২৪-২৫ শে জুন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত অধিবেশনে পশ্চিমবঙ্গের ২২ টি জেলা থেকে মোট ৪৫৪ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন, যাদের মধ্যে পুরুষ প্রতিনিধি ছিলেন ৩২৮ জন ও মহিলা প্রতিনিধি ছিলেন ১২৬ জন। এছাড়া দেশের ও রাজ্যের প্রায় শতাধিক সমবায় ক্ষেত্রের মহানুভবী ব্যক্তি ও সমাজসেবক ওই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয় সহকার ভারতীর সমবায় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে। পতাকা উত্তোলন করেন সহকার ভারতীর দুগ্ধ প্রকোষ্ঠের প্রমুখ শ্রী মার্কেন্ডেয় সিং। এরপর রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা সমবায় দ্রব্যের প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন সহকার ভারতীর সর্বভারতীয় সহ সভাপতি শ্রী সুশান্ত সরকার মহাশয়। উক্ত প্রদর্শনীতে মধু, তুলাইপঞ্জী চাল, তাঁতের শাড়ী, বিভিন্ন দেশীয় প্রক্রিয়ায় উৎপন্ন ধুপ, সাবান ও ভেষজ ঔষধ সহ সমবায়ে উৎপাদিত বিভিন্ন দ্রব্য প্রদর্শিত হয় ও আগত প্রতিনিধিরা সরাসরি ওই সমবায়ী ব্যক্তিদের সাথে মোট আদান প্রদান করেন। ২৪ তারিখের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আদ্যাপীঠের পরমপূজ্য মহারাজ মুরাল ভাই, রাষ্ট্রীয় স্বয়মসেবক সংঘের অখিল ভারতীয় সহ প্রচারক প্রমুখ শ্রী অদ্বৈত চরণ দত্ত, সহকার ভারতীর সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক ড: উদয় যোশী, সর্বভারতীয় সংঘটন সম্পাদক শ্রী বিজয় দেবাঙ্গন সহ সর্বভারতীয় নেতৃত্ব উপস্থিত ছিলেন। প্রদীপ প্রজ্জ্বলন ও ভারত মাতার ছবিতে পুস্প অর্পণ করে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন পরমপূজ্য মুরাল ভাই। এরপর রেলমন্ত্রী শ্রী সুরেশ প্রভুজির ভিডিও ভাষণ দেখানো হয় (উনি বিশেষ কারণে আসতে পারেননি তাই ভিডিও মেসেজ পাতিয়ে ছিলেন)। রাজ্যপাল শ্রী কেশরী নাথ ত্রিপাঠীর শুভেচ্ছা বার্তা পাঠ করা হয় । উদ্বোধনী ভাষণে শ্রী অদ্বৈত চরণ দত্ত সমবায় ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গের সমস্যা ও সহকার ভারতীর পশ্চিমবঙ্গে সম্ভাবনার কথা সবিস্তরে ব্যাখ্যা করেন। এরপর শ্রী দত্ত সহকার ভারতী পশ্চিমবঙ্গ শাখার পত্রিকা “সমবায় প্রবাহের” বিশেষ সংখ্যা স্মারক গ্রন্থ হিসাবে প্রকাশ করেন।বিশিষ্ট রবীন্দ্র গবেষক শ্রী ড: নিরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় সমবায়ের ক্ষেত্রে রবীন্দ্রনাথের চিন্তা ধারার সবিস্তারে বর্ণনা করেন। এই ভাবেই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়। এরপর সন্ধ্যায় সহকার ভারতীর সংবিধান অনুসারে তিন বৎসর অন্তরের সাংগঠনিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত নির্বাচনে নিবার্চনী তত্ত্বাবধায়কের ভূমিকা পালন করেন বিশিষ্ট সমবায়ী ব্যক্তি ও সহকার ভারতীর সহ সভাপতি শ্রী বিষ্ণু বোবড়ে। উক্ত নির্বাচনে শ্রী বিজয় কৃষ্ণ তালুকদার পশ্চিমবঙ্গ সহকার ভারতীর সভাপতি হিসাবে ও শ্রী সঞ্জয় ত্রিপাঠী সাধারণ সম্পাদক হিসাবে বিজয়লাভ করেন। বিজয়ী প্রার্থীদের ড: উদয় যোশী তার ভাষণের মাধ্যমে স্বাগত জানান। ২৫ তারিখ শুরু হয় সমাপন অনুষ্ঠান। উক্ত অনুষ্ঠানে সহকার ভারতীর সর্ব ভারতীয় নেতৃত্ব সহ উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়মসেবক সংঘের অখিল ভারতীয় প্রতিনিধি সভার সদস্য শ্রী সুনীল পদ গোস্বামী এবং রাষ্ট্রীয় স্বয়মসেবক সংঘের ক্ষেত্র প্রচারক শ্রী প্রদীপ যোশী। সমাপন অনুষ্ঠানের প্রাক্কালে নবনির্বাচিত সভাপতি শ্রী বিজয় কৃষ্ণ তালুকদার মোট ৪৩ সদস্যের রাজ্য কার্য্যকারিনীর ঘোষণা করেন। শ্রী বিজয় দেবাঙ্গন এর পর সমাপন ভাষণে সারাভারতে সহকার ভারতীর কাজ , সমবায় ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গে সহকার ভারতীর আগামী দিনের কাজ ও লক্ষ্যের কথা সবিস্তারে বর্ণনা করেন ও সমস্ত আগত প্রতিনিধিদের আগামী দিনে সমবায়ের বিস্তারের জন্য উৎসাহিত করেন। পশ্চিমবঙ্গ সহকার ভারতীর সংগঠন সম্পাদক শ্রী বিবেকানন্দ পাত্রের সমাপন মন্ত্রের পাঠের মাধ্যমে দুদিনের অধিবেশনের সমাপ্তি হয়।